সোনাই

Facebook Twitter Email

ছুঁইও না আমারে তুমি, আমি আজ দুঃখে জরো জরো

ছুঁইও না আমারে তুমি, আমি আজ জলে টলোমলো।

 

এইটুকু বলিয়া সোনাই রোদনে মজিল। সোনাইয়ের দুঃখে কান্দে গাছের পাতা যত। সোনাইয়ের দুঃখে কান্দে বনের পাখি শত।

 

সোনাইরে চিনি না আমি। শুধু জানি তার নাম।

 

দাদিজান বলেছে আমায়, সোনাইয়েরা কোনো দিন মরে না সংসারে; সোনাইয়েরা কোনো দিন বাঁচে না সংসারে। নানা দেহে সোনাইয়েরা চিরকাল ফিরে ফিরে আসে সংসারে।

 

অবশেষে বুঝিলাম মনে, আমারই দেহের ভেতর সোনাই বাস করে;  আমারই নয়ন দিয়াই সোনাই কান্দে।

 

সোনাইয়েরে জিগাই আমি : ও সোনাই তুমি কান্দো কেরে, তোমার দুঃখ কিয়ের কও।

সোনাই তো বলে না কিছুই, থাকে নিরুত্তর।

সোনাইরে পুনরায় করি জিজ্ঞাস : তোমার দুঃখ কিয়ের, কও।

মৃদু স্বরে বলে সোনাই :  আমি আমার কান্দন কান্দি নাগো, তোমার কান্দন কান্দি।

 

সোনাইয়েরে ডাকি আমি, চাই তার তাবৎ পরিচয়।

সোনাই তো বৃত্তান্ত জানায় না কিছুই। শুধু কয়, আকাঙ্ক্ষাই সংসারে সোনাই বলে পরিচিত হয়।

 

সোনাইয়ের লাগে না ভালো সংসারে। সোনাইয়ের লাগে না ভালো নিতি নিতি এই মরে যাওয়া। তবু, সোনাই ফিরে ফিরে আসে সংসারে। তবু, আমাদের মনের মধ্যে এক সোনাই বসত করে।

Facebook Twitter Email