ম-বর্ণ-৬

Facebook Twitter Email

মহুয়া, মল্লিকা এবং মাধবীর বন থেকে কোমল বর্ণগুলো

মার্চপাস্ট করতে করতে ছুটে যাচ্ছে

অবরুদ্ধ অক্ষরের ক্যান্টনমেন্টের দিকে।

ভাষাবাহিনীর এক মেজর জেনারেল বর্ণের ব্যাকরণ হাতে নিয়ে

রিক্রুট করে যাচ্ছে ম-বর্ণের কোনো কোনো রূপসী মেয়েকে।

দূরে দাঁড়িয়ে সীতানাথ বসাকের ছেলেবেলা হাসছে কেবলি।

চোখে তার উজ্জ্বল শিশার মতো অপরূপ জ্যোৎস্নার ঢেউ।

পিংপিং বলের মতো প-বর্গীয় ধ্বনিগুলো খেলা করছে

আদর্শলিপির এক বিবর্ণ পাতায়।

৫ ফুট ৬ ইঞ্চি দৈর্ঘ্যরে কোনো ধ্বনি আজো সৃষ্টি হয়নি

পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে।

একবার মোনালিসা নামে এক ম-বর্ণের রহস্যময়ীর চোখে

জ্বলে উঠেছিল পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম আলো!

সেই থেকে বাঁকাচোরা হাসির আড়াল বেয়ে সংগোপনে

কেঁদে উঠছে কাঠঠোকরা ভোরের মতো অপূর্ণ হৃদয়ে!

 

অনেক বছর পরে মাধবীর বনে ফুটছে মোনালিসা-হাসি;

যেন পঞ্চম ধ্বনির এক মায়াবী নারীর ঠোঁট

অকস্মাৎ জেগে উঠছে চুম্বনের মায়াবী নেশায়।

Facebook Twitter Email